করোনা ভাইরাস সনাক্তের পরীক্ষাগুলি তাদের রিপোর্ট প্রেরণে দেরি হওয়ার সাথে সাথে মানুষ এখন সনাক্তকরণের অন্যান্য উপায়ে নির্ভর করছে। থার্মাল ইমেজিং ক্যামেরা যার মধ্যে অন্যতম যার একমাত্র কারণ হচ্ছে এতে শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তির বেবহার করা হয়েছে। কেউ জ্বরে আক্রান্ত হয়েছে তা সনাক্ত করতে এবং এটিকে পৃথকীকরণে এই ক্যামেরা অত্যন্ত কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারে।

এই ক্যামেরা গুলির একটি বিশেষায়িত বৈশিষ্ট হচ্ছে এটা দিয়ে একসাথে এক ব্যক্তির তাপীয় ইমেজিং এর পাশা পাশি বিশাল সংখ্যক লোককে একত্রে স্ক্যান করতে এবং সনাক্ত বেক্তিদের কে আলাদা করে দেখতে পারে। এই ক্যামেরা গুলির সর্বাত্মক ব্যবহারের জায়গাগুলোর মধ্যে এয়ারপোর্ট, শপিংমল, হাসপাতাল এবং ভোটিংয়ের মতো বিশাল জনসমাবেশ জনিত এলাকায় বেবহার হয়ে থাকে । এই সকল ক্যামেরাগুলি ১/২ ডিগ্রির মধ্যে শরীরের মোট ১২ টি পৃথক স্থানের তাপ সনাক্ত করতে পারে। শনাক্তকৃত মানুষের ডাটা সরবরাহের জন্য এই সকল ক্যামেরা গুলোতে উন্নত প্রযুক্তির পাশা পাশি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বা আর্টিফিসিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যাবহার করা হয়ে থাকে যার মাধ্যমে নিখুঁত ফলাফল সুরক্ষা কর্মীদের অবহিত করা হয়।

হিকভিসন থার্মাল ক্যামেরাটি কিনতে নিচের প্রোডাক্ট কার্টে ক্লিক করুন